আজ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

এ এস আই রুমা পারভিনের নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্কের মাধ্যমে সেবা প্রদান-প্রত্যাহ বার্তা

আসমা আক্তার, কাউনিয়া :
বরিশাল কোতয়ালী থানা পুলিশের নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্কের মাধ্যমে সেবা প্রদান করে থাকেন এ এস আই রুমা পারভিন।

সেবার মান বৃদ্ধি পাচ্ছে নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্কের মাধ্যমে

বাংলাদেশে নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের সকল ক্ষেত্রেই অগ্রাধিকার দেয়া হয়। এ কারনে তারা বিশেষ করে সরকারি অফিসগুলোতে নিজেদের প্রয়োজনে একটু অগ্রাধিকার পায়।

তেমনী কোন কারনে যদি নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী আইনের সাহায্য পেতে চায় তাহলে তাকে গিয়ে দেশের কোন থানায়ই দাড়িয়ে থাকতে হবেনা। একই সাথে দ্রুত সময়ের মধ্যে তার সমস্যা সমাধানের চেস্টা করা হয়।

এই ডেস্কের ইনচার্জ থাকেন একজন সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই)। তার সাথে থাকেন এএসআই পদমর্যাদার একজন অফিসার।

ঠিক তেমনী বরিশাল মেট্টোপলিটন থানা পুলিশও সেবার মান বৃদ্ধির লক্ষে এই সেবাদান কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সেই হিসেবে বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্কের মাধ্যমে সেবা প্রদান করে থাকেন।

কোতয়ালী মডেল থানার এই ডেক্সের দায়িত্বে রয়েছেন এসআই নিশাত। আর তার সাথে কাজ করছেন এএসআই রুমা পারভীন।

সেবা প্রদানের বিষয় জানতে চাইলে এএসআই রুমা পারভীন আনন্দ বার্তাকে বলেন, এই ডেক্সে নারী, শিশু. বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের সব সময়েই গুরুত্ব সহকারে সেবা প্রদান করা হয়।

সেবা দানের মধ্যে রয়েছে, এই শ্রেনীর মানুষগুলো কোন অভিযোগ কিংবা জিডি করতে আসলে সেটা এই সার্ভিস ডেক্স এ করা হয় এবং দ্রুততার সাথে।

হিসেবে প্রতি মাসেই ২‘শর উপরে সেবা প্রদান করা হয় এই শ্রেনীর মানুষদের। করোনার বিশেষ সময়ে তাদের মাক্স বিতরণ করাসহ বিভিন্ন ধরনের সামাজিক সহযোগিতা করা হয়েছে এই সার্ভিসের মাধ্যমে। বিশেষ করে ১৮ বছরের নিচে যে কোন শিশু অপরাধে জড়িয়ে পড়লে সমাজসেবা কর্মকর্তার মাধ্যমে অপরাধ সংশোধনের জন্য থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নির্দেশনায় তাকে পূনরায় সংশোধন কিংবা আইনী সহযোগিতা করা হয়।

এর কারন শিশুর মনে যেন অপরাধের বিষয়টি বাসা বাধতে না পারে। তাই শিশুদের ক্ষেত্রে সব সময়েই বিষয় ভিত্তিক সুপারিশের মাধ্যমে তাকে সংশোধনের সুযোগ করে দেয়া হয় এই সেবা কার্যক্রম থেকে।

২০২১ সালের শুরু থেকে সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত ১৫১২ জনকে সরাসরি সেবা দান করা হয়েছে।

এর মধ্যে জানুয়ারীতে ১৪২ জন, ফেব্রুয়ারী ১৯৮, মার্চ ১৯৮, এপ্রিল ২২২, মে ২০৭, জুন ১৯১, জুলাই ৯৬, আগস্ট ২১৩ সেপ্টেম্বর ৭ তারিখ পর্যন্ত ৪৬ জনকে এই সেবা দেয়া হয়েছে।

এএসআই রুমা পারভীন আরো বলেন, পথ শিশু, বাড়ি থেকে হারিয়ে যাওয়া নারী শিশু কিংবা পালিয়ে আসা শিশুদের উদ্ধারের পরে তাদের স্বজনদের কাছে সরাসরি হস্তান্তর করা হয়।

Leave a Reply

     এই বিভাগের আরও খবর