আজ ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সাতক্ষীরায় ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে নিতে খুন জখমের হুমকি!

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাতক্ষীরায় ধর্ষন মামলার আসামীর নেতৃত্বে মামলা তুলে নিতে ভিকটিম ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। রবিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে ভিক্টিম(ধর্ষিতা) নিজেই এই অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১৭ সালে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে আমাকে জোরপূর্বক ধর্ষন করে সাতক্ষীরা শহরের উত্তর পলাশপোল এলাকার কাজী বাবুর ছেলে লম্পট মোস্তাফিজুর রহমান জনি। এঘটনায় আমি নিজে বাদি হয়ে সাতক্ষীরা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি মামলা দায়ের করি। ধর্ষক জনি এই মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে যায়। কিছুদিন পর জামিনে মুক্তি পেয়ে মামলা তুলে নিতে আমাকে খুন জখমের ভয় দেখিয়ে হুমকি দিতে থাকে। একপর্যায় গত ১৪ সেপ্টেম্বর আমি, আমার পিতা ও বোন রোকসানা আক্তারকে নিয়ে দোকানে মালামাল ক্রয় করতে আসলে মোস্তাফিজুর রহমান জনির নেতৃত্বে মৃত খোদা বকস মোড়লের ছেলে রাজু ও পুরাতন সাতক্ষীরা এলাকার আব্দুল গফুরের ছেলে মিঠু ও কামাল মির্জার ছেলে লিটন মির্জাসহ ৩/৪ জন সন্ত্রাসীরা আমাদের উপর হামলা চালায়। তারা আমাকে, আমার পিতা এবং বোনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। তিনি আরো বলেন, এসময় হামলাকারিরা আমার বড় বোনকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে এবং আমার পরনে কাপড় ছিড়ে আমাকে শ্লীলতা হানি ঘটনায়। এঘটনা জানতে পেরে স্থানীয়রা ছুটে আসলে হামলাকারিরা মামলা তুলে না নিলে খুন জখমসহ মিথ্যে মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এঘটনার পর আমি সদর থানায় একটি এজাহার দাখিল করি। কিন্তু ঘটনার সাথে জড়ি রাজুর ভাই একজন পুলিশ কর্মকর্তা হওয়ায় থানা কর্তৃপক্ষ মামলাটি রেকড না করে তালবাহনা করে যাচ্ছে। বিষয়টি সাতক্ষীরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সহকারি পুলিশ সুপার সদর সার্কেলকে অবহিত করি। কিন্তু তারপরও‘ আমার মামলাটি রেকড না করে আমাকে হয়রানি করা হচ্ছে। ফলে ধর্ষনের যন্ত্রনা নিয়ে ন্যায় বিচারের দাবিতে পথে পথে ঘুরছি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ এই মামলাটি রেকড না করায় ধর্ষক জনি আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। নিজের অপকর্ম ঢাকতে ভাড়াটিয়া বাহিনীর সহযোগিতায় মামলা তুলে নিতে খুন-জখমসহ বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। ফলের আমার পরিবারের সদস্যদের জীবনও এখন ঝুকির মধ্যে রয়েছে। অথচ এধরনের একটি স্পর্শকাতর মালাটি তুলে নিতে মারপিটের ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ না করে উল্টে আমাকে হয়রানি করা হচ্ছে। একজন অসহায় নির্যাতিত নারী হিসাবে ধর্ষক জনি ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও খবর