আজ ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ফুলবাড়ীতে নিম্নমানের সড়ক সংস্কার কাজ দেখার কেউ নেই

রতি কান্ত রায়:

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার শাহবাজার হতে পশ্চিম ধনিরাম পর্যন্ত ৩ হাজার ৪শ’ মিটার সড়কের সংস্কার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ তুলেছে এলাকাবাসী। রকমারি বৃক্ষরাজিতে আচ্ছাদিত নয়নাভিরাম সড়কটি কয়েক দফা বন্যার কবলে পড়ে ধ্বসে যায় দু’পাশের মাটি, উঠে যায় কার্পেটিং। সড়কের বেশির ভাগ অংশে তৈরি হয়। খানাখন্দ আর দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় সড়কের সংস্কার কাজ না হওয়ার কারণে ভেঙ্গে সরু হওয়া সড়কে চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় যাতায়াতকারীদের। অবশেষে সড়কটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল দপ্তর। তিন দশমিক চার কিলোমিটার দীর্ঘ ও তিন মিটার প্রস্থ সড়কের সংস্কার কাজ বাস্তবায়নের দায়িত্ব পান কুড়িগ্রামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স ফাহিম ট্রেডার্স। চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছরের ২১ অক্টোবর সড়কের সংস্কার কাজ শেষ হওয়ার কথা। সড়কের সংস্কার কাজ নিম্নমানের হওয়ায় হতাশ এলাকাবাসী। জানাগেছে, সড়কটির স্থায়ীত্ব বিবেচনায় নানা কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। সড়কে মাটি ভরাট, স্লিপিং, পাইলিং, ব্লকিং এবং কার্পেটিং কাজের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১ কোটি ৬৩ লক্ষ ৪৭ হাজার ১৫৬ টাকা। সড়কের সংস্কার কাজে কি কি অনিয়ম হচ্ছে জানতে চাইলে এলাকাবাসী জানান, সড়কের স্লিপিং ঠিকমত করা হয়নি। অনেক জায়গায় সড়ক মাপের চাইতে সরু করা হয়েছে। রাস্তায় নিম্নমানের ইট ও খোয়া ফেলা হয়েছে। সড়কের  দু’পাশে ৩ ফুট মাটি ফেলে ভরাট করার কথা থাকলেও তা করা হয়নি।  অনেক যায়গায় সড়কের গোড়ার মাটি কেটে উপড়ে ফেলা হয়েছে। মাটি নিয়মমত ঢালু না করায় বৃষ্টির পানিতে সড়কটি ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকা করছে স্থানীয়রা। সড়ক রোলিং করার জন্য একেবারেই কম ওজনের রোলার ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে খোয়া ফেলে রোলিং শেষ করার পরপরই আলগা হয়ে খোয়া উঠে যাচ্ছে। সর্বোচ্চ ২ ইঞ্চি সাইজের খোয়া ফেলার নিয়ম থাকলেও ৩/৪ ইঞ্চির খোয়াও ফেলা হয়েছে। এর উপরে কার্পেটিং করা হলে সড়কটি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে বলে আশংকা এলাকাবাসীর। মোট কথা সড়কের সংস্কার কাজে পরতে পরতে অনিয়ম। আমর এলাকাবাসী বেশ কয়েকবার কাজের অনিয়মের অভিযোগ তুলে কাজ বন্ধ করতে বলেছি। কিন্তু ঠিকাদারের লোকজন আমাদের কোন কথা কানেই তোলেনি। আর কাজটি তদারকির দ্বায়িত্ব পালনকারী কাউকে সংস্কার কাজ পরিদর্শনে আসতে দেখিনি। সড়কের সংস্কার কাজ এমন দায়সাড়া ভাবে হোক তা চাই না। যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানাচ্ছি, আপনারা নিয়মমাফিক সড়কটির সংস্কার কাজ বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন। সড়কের সংস্কার কাজে অনিয়মের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী আসিফ ইকবাল রাজিব বলেন, সড়কটির সংস্কার কাজ বাস্তবায়ন শুরুর পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আমাদের কিছুই জানানো হয়নি। সড়কের সংস্কার কাজে অনিয়ম থাকলে সরেজমিনে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

     এই বিভাগের আরও খবর