আজ ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শ্যামনগর সরকারি হাসপাতালে ডাক্তারের অবহেলায় আবারো এক গর্ভের সন্তানের মৃত্যু-জনমনে ক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার:শ্যামনগর হাসপাতলে কর্তব্যরত ডাক্তারের অবহেলায় গর্ভের সন্তানের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ।
২৩ শে এপ্রিল সন্তান প্রসব বেদনা নিয়ে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয় গর্ভবতী রেহানা খাতুন(২০)। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর থেকে কর্তব্যরত ডাক্তার ও নার্সদের অবহেলায় গর্ভের সন্তান এর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠিয়েছেন গর্ভবতীর পিতা শ্যামনগর সদর গোপালপুর গ্রামের মুজিবর রহমান। তিনি অভিযোগ করেন, তার কন্যার গর্ভের সন্তান প্রস্রাবের বিষয় ডাক্তার রিতা রানী পাল এর সহিত পরামর্শ করতে গেলে তিনি কোন গুরুত্ব দিতেন না এবং সুচিকিৎসা করেন নাই। দায়িত্বরত নার্স মোমেনা খাতুন এর সাথে চিকিৎসার বিষয়ে আলোচনা করতে গেলে তিনি খুব বিরক্ত হয়ে রাগ দেশ করে তেড়ে দিয়েছেন কয়েকবার। নার্স মোমেনা খাতুন ক্লিনিকে ভর্তি না হয়ে সরকারি হাসপাতালে আসছেন কেন বলে বকাবকি করেন এবং গর্ভবতী কার্ড ছুঁড়ে ফেলে দেন। গর্ভবতী রেহানা খাতুন এর মা রোমেছা বেগম কার্ড ছুঁড়ে ফেলে দেওয়ার প্রতিবাদ করায় নার্স মোমেনা খাতুন তাকে গলা ধাক্কা দেয় বলে অভিযোগ করেছেন।
ডাক্তার রিতা রানী পাল এর মোবাইল ফোনে এ বিষয়টি জানতে চাইলে, তিনি ওটিতে আছেন এখন কথা বলতে পারবেন না বলে প্রতিবেদককে জানান। প্রতিবেদক সাথে সাথে শ্যামনগর হাসপাতালে খবর নিয়ে জানেন সে সময় শ্যামনগর হাসপাতলে ওটিতে কোন অপারেশন হচ্ছে না। এভাবেই চলছে সব শ্যামনগর হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা।
অনুসন্ধানে জানা যায়, শ্যামনগর হাসপাতলে প্রসূতি বিভাগের রোগীদের সাথে কর্তব্যরত ডাক্তার ও সিস্টারের শোভনীয় আচরণ এর অভিযোগ পাওয়া যায়। সিস্টাররা এমন ধরনের আচরণ করেন গর্ভবতী মায়েরা গরিব হওয়া সত্বেও শ্যামনগর হাসপাতলে আসতে অনীহা প্রকাশ করে এবং ঋণ দেনা করে বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি হয়। শ্যামনগর হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এক গর্ভবতী মায়ের সজন প্রতিবেদককে জানান গভীর রাতে সেবিকা মোমেনা খাতুন কে ডাকতে গেলে সে মারতে উদ্যত হয়। শ্যামনগর হাসপাতালে সিস্টার মোমেনা খাতুন রোগীদের সাথে যে দুর্ব্যবহার করে যার কারণে  প্রায় হট্টগোল হতে শোনা যায়। শ্যামনগর সরকারি  হাসপাতালে ডাক্তারের চিকিৎসা ও নার্সদের ব্যবহার জানো প্রাইভেট ক্লিনিক গুলোর দালালদের মতো।

ভুক্তভোগী পরিবারটি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানায় যাতে ভবিষ্যতে এমন ঘটনা আর না ঘটে।

নামায ও ইফতারের সময়সূচীঃ

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৩:৫৭ পূর্বাহ্ণ
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৩৯ অপরাহ্ণ
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০২ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০২ অপরাহ্ণ
  • ৪:৩৬ অপরাহ্ণ
  • ৬:৩৯ অপরাহ্ণ
  • ৮:০১ অপরাহ্ণ
  • ৫:২২ পূর্বাহ্ণ

Leave a Reply

     এই বিভাগের আরও খবর