আজ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মণিরামপুরে আদালত কর্তৃক ১৪৪ ধারা অমান্য করে ঘর নির্মাণের অভিযোগ

মণিরামপুর প্রতিনিধি:
যশোরের মণিরামপুরে আদালত কর্তৃক ১৪৪ ধারা অমান্য করে জোরপূর্বক ঘর নির্মানের অভিযোগে উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের দারস্থ্য হয়েছেন গোপাল বিশ্বাস নামে এক ভূক্তভোগী। এ ঘটনায় আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভূক্তভোগী জমির প্রকৃত মালিক।
মামলার বিবরণ ও অভিযোগের সূত্রে জানাযায়, উপজেলার ১৬৮নং পাড়দিয়া মৌজার হাল দাগ নং-১০২১ (আরএস) যার খতিয়ান নং-২৫৪-এর ১০ শতাংশ জমি উপর বসবাসরত পাড়দিয়া গ্রামের মৃত ধীরেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের পুত্র গোপাল বিশ্বাসের (৫০)-এর সাথে বসতবাড়ী হতে বের হবার রাস্তা সংস্কার সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ধাবৎ একই গ্রামের প্রতিবেশি পাগল চান বিশ্বাসের পুত্র অশোক বিশ্বাস (৫৫) এবং অনন্ত বিশ্বাসের পুত্র সুনীল বিশ্বাস (৩৫)-এর সাথে বিরোধ চলে আসছে। শান্তিতে বসবাস করার স্বার্থে অত্র এলাকার স্থানীয় সমাজপতিরা বাদী-বিবাদীদের একাধিকবার মিমাংসা করার চেষ্টা করেছেন। শান্তিতে বসবাস করার জন্য সমাজপতিদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক গত ২০২১ সালের ১০ জানুয়ারী বাদী গোপাল বিশ্বাস বসতবাড়ী হতে বের হবার রাস্তাটি সংস্কারের জন্য মাটি ফেললে বিবাদীগণ তাকে বাধা প্রদান করে। সমাজপতিদের শান্তি চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করে লোভের বশবতি হয়ে জমি দখল করার জন্য বাদী গোপাল বিশ্বাসকে বেদম মারপিট করাসহ হত্যা করার হুমকি প্রদান করে। এ সময়ে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে তাকে রক্ষা করে। উল্লেখিত জমির রাস্তাসহ জমির অংশ বিশেষ বিবাদীগণ জোরপূর্বক দখলে নেয়ার চেষ্টা করে। এ ঘটনায় বাদী আদালতের দারস্থ্য হলে, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে গত ২০২১ সালের গত মার্চ বাদী-বিবাদী উভয় পক্ষকে শান্তি শৃংখলা বজায় রাখাসহ বিজ্ঞ আদালতের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, যশোর-মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জকে নালিশী জমির প্রকৃত দখলদার ও তর্কিত বিষয়ে সরেজমিনি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ প্রদান করে চলতি বছরের ১০মে পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য করেন। কিন্তু লোভী বিবাদীগণ বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে উল্লেখিত নালিশী জমির রাস্তা বন্ধ করে ঘর নির্মাণ করে চলেছে। গোপাল বাধা দিতে গেলে তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে চলেছে। উপায়ন্ত না পেয়ে প্রতিকারের আশায় গোপাল বিশ্বাস-উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সহকারী কমিশনার, মণিরামপুর থানাসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিবাদী অশোক বিশ্বাস ও সুনীল বিশ্বাস বাদীর অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নালিশী জমিতে নয়-আমাদের জমিতে আমরা ঘর নির্মান করছি।

নামায ও ইফতারের সময়সূচীঃ

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৪:২১ পূর্বাহ্ণ
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:২৮ অপরাহ্ণ
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:২৬ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৬ অপরাহ্ণ
  • ৪:৩৪ অপরাহ্ণ
  • ৬:২৮ অপরাহ্ণ
  • ৭:৪৪ অপরাহ্ণ
  • ৫:৪১ পূর্বাহ্ণ

Leave a Reply

     এই বিভাগের আরও খবর