ক্ষেতলালে গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ, ২ জন আটক

মুহাম্মদ আমানুল্লাহ আমান, ক্ষেতলাল (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে যৌতুকের বলি হলেন ফরিদা খাতুন (২৫) নামের এক গৃহবধু। তাকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী, শ্বশুর ও শাশুরীর বিরুদ্ধে। গতকাল শনিবার ভোর ৪টায় ক্ষেতলাল পৌর এলাকার বুড়াইল গ্রামের আঃ গফুরের ছেলে সোহেল রানা (২৮), তার বাবা আঃ গফুর (৫০), মা হাজেরা ওরফে শিরিনা (৪৫) মিলে নিজ বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শ্বশুর আঃ গফুর ও শ্বাশুরী হাজেরাকে আটক করে পুলিশ। এলাকাবাসীর দাবী ফরিদাকে তারা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। পুলিশের দাবী আত্মহত্যার প্ররোচনা করেছে তার পরিবারের লোকজন। সরেজমিনে জানা গেছে, গত সাত বছর আগে একই গ্রামের মোফাজ্জল মন্ডলের মেয়ে ফরিদা খাতুনকে প্রতিবেশি আঃ গফুরের ছেলে সোহেল রানার সাথে বিয়ে দেয়। সোহেল স্থানীয় একটি কোল্ডস্টোরেজে কাজ করে। তাদের কোল জুরে আসে একটি কন্যা সন্তান ছালেহা (২)। বাবার বাড়ী থেকে যৌতুক হিসেবে দিয়েছে এক খন্ড জমি, নির্মান করে দিয়েছে ইটের পাকা বাড়ী। তাতে ও আশা পূরণ হয়নি স্বামী-শ্বশুর ও শ্বাশুরী হাজেরা ওরফে শিরিনার। প্রায়ই বিভিন্ন অজুহাতে তার উপর চলত শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন। ওই গৃহবধুকে হত্যার পর শনিবার ভোর ৪টায় তার স্বামী ও পরিবারের লোকজন চিৎকার দিয়ে বলেন, ফরিদা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। প্রতিবেশিরা তাদের চিৎকার শুনে বাড়ীর ভিতরে গিয়ে দেখতে পায়, ওই গৃহবধূকে মৃত অবস্থায় ঘরের ভেতর খাটের উপর শুইয়ে লেপ দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে । এ নিয়ে এলাকায় গুণঞ্জন শুরু হলে গৃহবধুর স্বামী সোহেল পালিয়ে যায়। ঘটনাটি ক্ষেতলাল থানায় জানালে পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে ওই গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা হাসপাতালে পাঠায় এবং ঘটনাস্থল থেকে তার শ্বশুর আঃ গফুর ও শ্বাশুরী হাজেরাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এ বিষয়ে ওই গৃহবধুর বাবা মোফাজ্জল মন্ডল বাদী হয়ে ক্ষেতলাল থানায় পেনাল কোর্ড ৩০৬/৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করেন। জানা যায়, ওই গৃহবধূ নির্যানত সহ্য করতে না পেরে গত শনিবার বিকেলে তার প্রতিবেশি এক ভাবিকে বলেন, আমার বাবা বাড়ী করার জন্য যে জায়গাটুকু আমার নামে দলিল করে দিয়েছে সেই জমি আমার শ্বশুর-শ্বাশুরী ও স্বামীর নামে লিখে দিতে বলে। আমি না দিতে চাইলে তারা আমার উপর বিভিন্ন সময় নির্যাতন করে। আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি তাদের কে ওই বাড়ীর জমি দলিল করে দিয়ে দু’চোখ যে দিকে যায় সে দিকে চলে যাব। এরই মধ্যে কাল রাতে তার স্বামী ও পরিবারের লোকজন তাকে হত্যা করে। এ বিষয়ে ক্ষেতলাল থানার ওসি নিরেন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার শ্বশুর-শ্বাশুরীকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ও তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পরই জানা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা। অভিযুক্ত স্বামী পলাতক রয়েছে, তাকে ধরার জন্য চেষ্টা চলছে।

সাংবাদিক নাম শুনলেই গায়ে চুলকানি শুরু হয় এএসপি হুমায়ূন কবিরের

বার্তা ডেস্কঃ সাংবাদিক পরিচয় পেলেই হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে সাতক্ষীরার তালার পুলিশের সার্কেল এসপি হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে। রবিবার সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ-দেবহাটার তৃতীয় ধাপের নির্বাচনের কালিগঞ্জের ধলবাড়িয়া ইউনিয়নের এলাকায় দায়িত্ব পালনকালে যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার আহসানুর রহমান রাজিব, কালিগঞ্জ রিপোটার্স ক্লাবের সভাপতি নিয়াজ কাউসার তুহিনসহ একাধিক সাংবাদিক এবং রাস্তায় চলাচলকারী শতাধিক মানুষের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন তিনি। যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার আহসানুর রহমান রাজিব তার ফেইসবুক পোস্টে লিখেছেন ‘‘তিনি সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার পুলিশের সার্কেল এসপি হুমায়ুন কবির। নির্বাচনী দায়িত্ব পালনকালে তিনি আজ সাংবাদিকদের নতুন আইন শেখালেন। নির্বাচন কমিশন থেকে সাংবাদিকদের জন্য (স্টিকার) অনুমতি দেওয়া ৫সিটের গাড়িতে একজনের বেশি চড়তে পারবেন না! আজ সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে তিনি আমাদের মুল্যবান ৩০ মিনিট সময় নষ্ট করে সেই আইন শিখিয়েছেন। পরবর্তীতে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে তার কাছ থেকে মুক্তি মেলে। বিষয়টি জেলা পুলিশের উধ্বর্তন কর্মকতার নিকট জানানো হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানতে পারলাম, কিছুদিন আগে লকডাউন চলাকালে নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজে বাইরে আসা অসহায় খেঁটে খাওয়া এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেন এই পুলিশ কর্মকর্তা। সেই সংবাদ গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর থেকে তিনি সাংবাদিক দেখলেই ইচ্ছাকৃতভাবে হয়রানি করেন। আজ নির্বাচনের শুরু থেকেই বিভিন্ন এলাকায় রাস্তার উপর দাঁড়িয়ে বেছে বেছে সাংবাদিকদের সাথে বেপরোয়া আচরণ করেন এই সহকারী পুলিশ কর্মকর্তা। বিষয়টি নিয়ে তার সাথে থাকা পুলিশের সদস্যরা বিব্রত। তার সমস্যার বিষয়ে জানতে কয়েকজন পুলিশ সদস্য জানান, সাংবাদিক দেখলেই তার নাকি চুলকানি হয়! যাই হোক, তার আচরণ দেখে আমার মনে হয়েছে তিনি মানসিক রোগে ভুগছেন। রাষ্ট্রের এমন গুরুত্বপুর্ণ পদে তার এই মুহূর্তে দায়িত্বে থাকা কতটা নিরাপদ?’’ এ বিষয়ে যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার আহসানুর রহমান রাজিব বলেন, রবিবার সকাল ৯টায় ৪৫ মিনিটে ধলবাড়িয়া মোড়ে নির্বাচন কমিশনের পাশকৃত প্রাইভেটকার নিয়ে পেশাগত পালনকালে তালার পুলিশের সার্কেল এসপি হুমায়ুন কবির আমাকে আটকে বলেন গাড়ীতে একজন থাকতে পারবেন। সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর আরও ক্ষেপে যান। সাতক্ষীরায় কয়েক হাজার সাংবাদিক তাদের সবাইকে কি চিনে রাখবো। বৈধ স্টিকার দেখালেও তিনি বলেন, একজনের বেশি থাকতে পারবেন না, বলে আধাঘন্টার বেশি সময় তিনি ওই স্থানে আমাদের আটকে রাখেন। কয়েকশ’ মানুষের মাঝে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন বাজে বাজে মন্তব্য করতে থাকেন। পরে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে ছেড়ে দেন।

রবিবার শার্শার ১০ ইউনিয়নে ভোট : প্রস্তুতি সম্পন্ন

মোঃ আইয়ুব হোসেন পক্ষী বেনাপোল প্রতিনিধি : নানা শঙ্কা আর সংশয়ের মধ্যে দিয়ে তৃতীয় ধাপের নির্বাচন রবিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যশোরের শার্শা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে। শেষ মুহূর্তের প্রচার-প্রচরাণায় উত্তাল এখন উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে। দলীয় নেতা-কর্মী আর সমর্থকদের নিয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে নিজেকে দলীয় প্রার্থী বলে পরিচয় দিয়ে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্তের পাশাপাশি পরিবর্তনের মাধ্যমে উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রার্থীরা। আর ভোটরারা বলছেন দেখেশুনে যোগ্য প্রার্থীকে ভোট দেবেন। ভোট হবে উপজেলার ডিহি, লক্ষণপুর, বাহাদুরপুর, পুটখালি, গোগা, কায়বা, বাগআঁচড়া, উলাশী, শার্শা ও নিজামপুর ইউনিয়নে।

বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, গোটা উপজেলায় চলছে পুরোদমে নির্বাচনী আমেজ। কৃষি জমি থেকে শুরু করে বাজারে চায়ের দোকানের আড্ডায় সবার মুখে আলোচনার প্রধান বিষয় ভোট। ভোটাররা যেমন প্রার্থীদের নিয়ে নানা ধরনের চিন্তা ভাবনা করছেন তেমনি প্রার্থীরাও বসে নেই। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে সকল প্রকার প্রচারণা শেষ। সকাল হলেই ভোট কেন্দ্রে জড়ো হতে থাকবে ভোটার ও প্রার্থীরা।

শার্শা উপজেলা নির্বাচন অফিসার মেহেদী হাসান জানান, এ উপজেলায় ১১টি ইউনিয়ন হলেও ১০টিতে নির্বাচন হচ্ছে। বেনাপোল ইউনিয়নে সীমানা সংক্রান্ত উচ্চ আদালতে মামলা থাকায় সেখানে নির্বাচন হচ্ছে না। ১০টি ইউনিয়নে ১০৮টি ভোট কেন্দ্রে ২ লাখ ৩৫ হাজার ২৪৩ জন ভোট প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ১৮ হাজার ২০০ জন ও নারী ভোটার ১ লাখ ১৭ হাজার ৪৩ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন ৪৩ জন। তবে নির্বাচনের আগে বিদ্রোহী তিন ও স্বতন্ত্র এক জন প্রার্থী আনুষ্ঠানিক ভাবে নৌকা প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ায় এখন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ৩৯ জন এবং সংরক্ষিত পদে ৯৭ জন ও সাধারণ পদে ৪০৭ জন।

উপজেলা রিটানিং অফিসার ও শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজা জানান, নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। কেন্দ্রে কেন্দ্রে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের দায়িত্ব বন্টন ও ব্যালট বাক্্রসহ নির্বাচনী সামগ্রী বুঝে দেওয়া হয়েছে।

১০ ইউনিয়নের ১০৮টি কেন্দ্রের মধ্যে ৬২টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় নিরাপত্তা ব্যবস্তা জোরদার করা হয়েছে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে পুলিশ ও আনসার সদস্যরা নির্বাচনের আগের দিন থেকে নির্বাচনী কার্যক্রম শেষ হওয়া পর্যন্ত স্থায়ীভাবে দায়িত্ব পালন করবে। এ ছাড়া বাড়তি নিরাপত্তার জন্য পুলিশের মোবাইল টিম, বিভিন্ন বাহিনীর সমন্বয়ে স্ট্রাইকিং ফোর্স, র‌্যাব ও বিজিবি’র টিম সার্বক্ষণিক কাজ করবে।

বেনাপোল এক্সপ্রেস’ চলবে ২ ডিসেম্বর থেকে : স্বস্তিতে বেনাপোলসহ কলকাতাগামী যাত্রীরা

মোঃ আইয়ুব হোসেন পক্ষী বেনাপোল প্রতিনিধি : ফের সুদিন ফিরল বেনাপোল ও কলকাতাগামী যাত্রীদের জন্য। দেড় বছর পর ফের চালু হচ্ছে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস। ২ ডিসেম্বর থেকে ঢাকা-যশোর-বেনাপোলের একমাত্র সরকারি ট্রেনের চাকা গড়াবে। ফলে ফের বেনাপোলসহ কলকাতাগামী অসংখ্য যাত্রীদের অনেকটাই মিলবে স্বস্তি। বর্তমানে প্রতিদিন বেনাপোল-পেট্রাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে যাতায়াত করছেন দেড় হাজার যাত্রীরও বেশি। তাঁদের মধ্যে ৯০ শতাংশ যান চিকিৎসার কারণে। ট্রেনের সুবিধা না থাকার কারণে চরম দুর্ভোগের সম্মুখীন হতে হয়েছে তাদের।

বেনাপোল স্টেশন মাস্টার সাইদুজ্জামান জানান, ২ ডিসেম্বর থেকে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি চলবে বলে বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমা লের সহকারী চিফ অপারেটিং সুপারিনটেনডেন্ট আব্দুল আওয়াল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে করোনার আগে প্রতিদিন ঢাকাসহ বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ৫-৬ হাজার পাসপোর্টধারী যাত্রী ভারতে যাতায়াত করতেন। করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের সব ট্রেন চলাচল বন্ধ হলে ৫ এপ্রিল থেকে ঢাকা-বেনাপোল রুটে আন্তঃনগর এ ট্রেনটিও বন্ধ করে দেয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছিল ভারত যাতায়াতকারী বিশেষ করে অসুস্থ যাত্রীদের। বেশ কিছু দিন আগে সরকার সব ধরনের যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি চালুর দাবি করা হয়। বেনাপোল থেকে ঢাকায় বাস বা অন্যান্য পরিবহণে ১৮-২০ ঘণ্টা সময় লাগে। সেখানে মাত্র ৭ ঘণ্টায় ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ঢাকায় পৌঁছে দেয়।

মঙ্গলবার ছাড়া প্রতিদিন দুপুর ১টায় বেনাপোল এবং রাত সাড়ে ১০টায় ঢাকার কমলাপুর থেকে ছাড়ে ট্রেনটি। ফলে কলকাতা বা ভারতে চিকিৎসার কারণে যে সমস্ত যাত্রীরা যাতায়াত করেন, তাদের কিছুটা হলেও স্বস্তিতে তারা।

বেনাপোল সাদিপুর ওয়ার্ড যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্টিত

মোঃ আইয়ুব হোসেন পক্ষী, বেনাপোল প্রতিনিধিঃ- শার্শা উপজেলার বেনাপোল পৌরসভার ১নং সাদিপুর ওয়ার্ড যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্টিত হয়েছে।

শনিবার ২৭ নভেম্বর বিকাল ৪টার সময় বেনাপোল সাদিপুর প্রাইমারী স্কুল মাঠে বেনাপোল পৌর আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক কাউন্সিলর আহাদুজ্জামান বকুলের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহবায়ক জসিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্টিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা পরিষদের সদস্য ও শার্শা উপজেলার আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান অহিদ।

বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা মহিলা যুব লীগের সাধারন সম্পাদিকা শামীমা আলম ছালমা৷ বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি এনামুল হক মুকুল ,সহ-সভাপতি আলী কদর সাগর ও সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দীন, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আরিফজ্জামান ভাদু, প্রচার সম্পাদক সবুর বিশ্বাস, সাদিপুর ওয়ার্ড আ.লীগের সভাপতি সুলতান আহমেদ বাবু৷

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন রাসেল, উপজেলা বাস্তহারা লীগের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মাদ আলী, পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু ও সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেন, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন জোয়ার্দার ও সাধারন সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম তৌহিদ, বেনাপোল হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের ৯২৫ এরসভাপতি রাজু আহমেদ ৷

সাদিপুর ১নং ওয়ার্ড ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদপ্রার্থী হলেন মোঃ শামীম সরদার, জয়নাল আবেদিন বাবু ও বিল্লাল হোসেন ৷

সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী হলেন মোঃ সাগর মোড়ল, মোঃ হাফিজুর রহমান, আহসান মোড়ল, ইমরান গাজি।

করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর জরুরি নির্দেশনা

অনলাইন বার্তা ডেস্ক: করোনার আফ্রিকার নতুন ধরন মোকাবিলায় দ্রুত পদক্ষেপ নিতে জরুরি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জনিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

শনিবার (২৭ নভেম্বর) সকালে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠিতব্য ‘ওয়াল্ড হেলথ অ্যাসেম্বেলি সেকেন্ড স্পেশাল সেশন’ এ অংশ নিতে যাত্রাকালে এক অডিও বার্তায় এসব কথা জানান তিনি।
দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম প্রধান গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
এক অডিও বার্তায় মন্ত্রী জানান, সম্প্রতি আফ্রিকাসহ ইউরোপের কিছু দেশে ছড়িয়ে পড়া ওমিক্রন নামক করোনার নতুন একটি ভ্যারিয়েন্টের বিষয়ে দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অবগত রয়েছে এবং এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাসমূহও গ্রহণ করা হচ্ছে।

এ ভাইরাসটি করোনার অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টের তুলনায় কিছুটা বেশি ভয়ংকর হলেও দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এটি নিয়ে তৎপর রয়েছে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছে বলে নিশ্চিত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

ভাইরাসটি নিয়ে অধিক আতঙ্কিত না হয়ে দেশবাসীকে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে অডিও বার্তায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আফ্রিকান নতুন ভ্যারিয়েন্ট বিষয়ে আমরা অবহিত হয়েছি এবং এ ভাইরাসটি খুবই সংক্রামক। সে কারণে আফ্রিকার সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ এখন স্থগিত করা হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, সব এয়ারপোর্ট, ল্যান্ডপোর্টে বা দেশের সব প্রবেশপথে স্ক্রিনিং আরও জোরদার করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সারা দেশেই স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলতে এবং মুখে মাস্ক পরতে উদ্বুদ্ধ করতে সব জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। বিশ্বের আক্রান্ত অন্যান্য জায়গা থেকেও যারা আসবেন তাদের বিষয়েও সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। কোনোভাবেই স্ক্রিনিং ছাড়া যেন আক্রান্ত দেশের কোনো ব্যক্তি দেশে প্রবেশ করতে না পারেন সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট শাখাগুলোকেও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
সুইজারল্যান্ড সফরকালে বিমানবন্দরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর এবিএম খুরশিদ আলমসহ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন  কর্মকর্তারা এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন।

ওটিটিতে স্বাধীনতা আছে: দীপা

অনলাইন বার্তা ডেস্ক: ওটিটি প্ল্যাটফর্ম জিফাইভ-এ মুক্তি পাচ্ছে ড্রামা সিরিজ ‘আমাদের বাড়ি’। ১২০ পর্বের এ সিরিজটি নির্মাণ হয়েছে পারিবারিক কাহিনী নিয়ে। শনিবার (২৭ নভেম্বর) মুক্তি পাচ্ছে সিরিজটির প্রথম ২০ পর্ব।

এ সিরিজে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন দীপা খন্দকার। আলাপকালে তিনি জানিয়েছেন ‘আমাদের বাড়ি’ নিয়ে বিভিন্ন তথ্য। আলাপের চুম্বক অংশটুকু পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

আপনার চরিত্রটি নিয়ে বলুন-
আমার চরিত্রটি বেশ মজার। এখানে আমি একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ। এক সময় আমার মনে হয়, আমি বাইরে কেন প্র্যাকটিস করব, আমার বাসাতেই তো নানান ধরনের রোগী। সেই ভাবনা থেকেই বাড়ির সদস্যদের মনোরোগের নানা বিষয়ে সেশন নিতে থাকি। এভাবেই হাসি, আনন্দের নানা ঘটনাকে নিয়ে এগিয়ে চলে ড্রামা সিরিজ ‘আমাদের বাড়ি’।

শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?
উত্তরার একটি বাড়িকে প্রয়োজন অনুযায়ী সাজিয়ে নিয়ে শুটিং করা হয়েছে। আসলে পুরো নাটকজুড়েই নানান মজার ঘটনা। একটা অংশে ছিল রুটি বানানোর দৃশ্য। আমি আমার পরিবারের ছোটদের দিয়েছি রুটি বানাতে, মূলত এটা একটা প্রতিযোগিতা। যার রুটি বানানো সবচেয়ে সুন্দর হবে তাকে একটা পুরস্কার দেওয়া হবে। চেষ্টা করলেও কারো রুটিই ঠিকভাবে হচ্ছিল না। যার রুটি ভালো হলো তার পুরস্কার হলো রুটি বানানোর বেলন। মানে সে রোজ রুটি বানাবে, শাস্তির মতো মনে হলেও সেটাই ছিল পুরস্কার।

আপনারা তো করোনাকালে শুটিং করেছিলেন-
হ্যাঁ। আমরা সতর্কতা মেনেই কাজটি করেছি। নিজেকে সাবধানে রাখতে হয়েছিল। আমরা তো খুব বেশি মাস্ক ব্যবহার করতে পারিনি। তাই ইউনিটের বাকিরা যাতে মাস্ক ব্যবহার করে, সেটুকু নিশ্চিত করা হয়েছিল। সবমিলিয়ে অন্যরকম একটি অভিজ্ঞতা হয়েছে কাজটি করতে গিয়ে।

টেলিভিশন আর ওটিটির কাজের মধ্যে ভিন্নতা আছে?
টেলিভিশনে এখনো সব ধরনের গল্পের কাজ দেখানো যায় না। কিন্তু ওটিটিতে সেই স্বাধীনতা আছে। এ ছাড়া টেলিভিশনে কাজের ক্ষেত্রে বাজেট বেঁধে দেওয়া হয়, যাতে অনেক সময় কাজের মান খারাপ হয়ে যায়। কিন্তু এক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত মান ধরে রেখেছে। যদি দীর্ঘদিন মান ধরে রাখতে পারে, তাহলে ওটিটি বেশ ভালো প্ল্যাটফর্ম।

‘আমাদের বাড়ি’ ১৯০টি দেশের মানুষ দেখবে ওটিটি’র মাধ্যমে-
এটাতো দারুণ বিষয়। দেশের বাইরে যারা থাকেন তারা অনেকেই জানান, সব চ্যানেল উনারা দেখতে পারেন না, সব কাজ ইউটিউবে পাওয়া যায় না। ওটিটি এসব সমস্যার সমাধান নিয়ে এসেছে। নিঃসন্দেহে ভালো লাগছে এতোগুলো দেশের বাংলাভাষীরা এবার আমাদের অভিনয় দেখতে পারবেন। 

আপনার প্রত্যাশা কেমন?
আমার মনে হয়, দর্শক পারিবারিক গল্প দেখতে চায়। আমি নিজে যখন দর্শক হিসেবে নাটক দেখি, দুজন বা তিনজনকে নিয়ে সাজানো, হোক তা প্রেমের বা অন্য কিছুর। আমার খুব একটা ভালো লাগে না। হাস্যরস নিয়ে সাজানো, একেক জনের একেক রকম মজার চরিত্র নিয়ে সাজানো পারিবারিক এই সিরিজটি আশা করা যায় দর্শকদের ভালো লাগবে।

৩৩০ রানেই থেমে গেল বাংলাদেশের ইনিংস

অনলাইন বার্তা ডেস্ক: প্রথম দিনে দাপট দেখিয়ে দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ ইনিংস। দ্বিতীয় দিন ২৫৩ রান ৪ উইকেটে নিয়ে খেলতে নামা বাংলাদেশ গুটিয়ে যায় ৩৩০ রানে। পাকিস্তানের হয়ে ৫ উইকেট তুলে নেন হাসান আলি। এখন মধ্যাহ্ন বিরতিতে গেছে দুই দল।

প্রথম দিনে শতক করেছিলেন লিটন দাস। তখন ৮২ রানে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক। সবার আশা ছিল দ্বিতীয় দিনে নিজের শতক পূর্ণ করবেন মুশি। তবে সেটি আর হয়নি। নার্ভাস নাইনটিতে আউট হন তিনি। ফাহিম আশরাফের বলে উইকেটরক্ষকের কাছে ক্যাচ তুলে দেন মুশফিক। মুশফিক আউট হয়েছেন ৯১ রানে। মেহেদী হাসান মিরাজ ছিলেন ৩৮ রানে অপরাজিত। মেহেদী বাদে কেউ ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে পারেনি, যার ফলে ৩৩০ রানেই গুটিয়ে যায় টাইগারদের ইনিংস।  

এর আগে দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় ওভারেই প্রথম দিনের শতক করা লিটন দাসকে হারায় বাংলাদেশ। লিটন-মুশফিকের ২০৪ রানের জুটি ভাঙ্গে হাসান আলি। লিটনকে এলবিডব্লিউ করেন হাসান আলি। এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে ৪ রানে সাজঘরে ফেরেন টেস্টে অভিষেক হওয়া ইয়াসির আলি। তবে এক প্রান্ত ধরে খেলতে থাকেন বিশ্বকাপে সমালোচনায় পরা মুশফিকুর রহিম। তবে নিজের শতক পূরণ করার আগেই সাজঘরে ফেরেন মুশফিক। 

এদিকে পাকিস্তানের হয়ে দিনের শুরুটা দারুণ করেন হাসান আলি। প্রথম দুই উইকেটের দুটিই তুলে নেন তিনি। এরপর আরও দুই উইকেট নিয়ে ৫ উইকেট তুলে নেন তিনি। প্রথমে লিটনকে এলবিডব্লিউ করেন। এরপর ইয়াসির আলিকে বোল্ড করেন। দ্বিতীয় দিনের শুরুতে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পরে বাংলাদেশ। এরপর শাহিন আফ্রিদি ফেরান তাইজুলকে। 

পাকিস্তানের বিপক্ষে শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২৫৩ রান নিয়ে দিন শেষ করে বাংলাদেশ। সেঞ্চুরির আক্ষেপ রেখে ক্রিজ ছাড়েন মুশফিকুর রহিম। লিটন শতক হাঁকালেও দিন শেষে ১৯০ বলে ৮২ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন মুশি। দিনশেষে বাংলাদেশ উইকেট হারায় ৪টি।

এর আগে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন টাইগার দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক। তবে অধিনায়কের সেই সিদ্ধান্তের ফায়দা উঠাতে ব্যর্থ হয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটাররা। উল্টো মাত্র ৪৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ভরাডুবির দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে ছিল বাংলাদেশ। 

তবে সেখান থেকে দলের হাল ধরেন লিটন আর মুশফিক। তাদের অপরাজিত ২০৪ রানের জুটির ওপর ভর করে প্রথম দিনটা নিজেদের করে নেয় বাংলাদেশ।

ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করার হুমকি বিএনপির

অনলাইন বার্তা ডেস্ক: বেগম খালেদা জিয়ার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। তার রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য দ্রুত তাকে বিদেশে নেওয়া প্রয়োজন বলেও জানান তিনি।

এ মুহূর্তে বেগম জিয়ার চিকিৎসার চেয়ে সরকার পতনের আন্দোলনে বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। এ সময় ঢাকাকে সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার হুমকিও দেন তারা।

বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ৯০’এর ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য আয়োজন করে আলোচনা সভার। বক্তব্যে বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে কঠোর অবস্থানে যাওয়ার ঘোষণা দেন দলটির নেতারা।

তারা বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর পথে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। তাকে অবিলম্বে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠাতে হবে। খালেদা জিয়াকে এখন মুক্তি দেওয়া না হলে দেশ অচল করে দেওয়া হবে। ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করে দিতে হবে।

আলোচনায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেন বেগম জিয়ার বলেন, পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে, তবে কেনো হচ্ছে তা অনুসন্ধানে আধুনিক প্রযুক্তি দেশে নেই। তাই দ্রুত বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা করানো অত্যন্ত জরুরি হয়ে পড়েছে বেগম জিয়ার৷

তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে এমন জায়গায় নিতে হবে যেখানে তার চিকিৎসার সব ধরনের উপকরণ আছে। তার সঠিক রোগটিই খুঁজে বের করতে হবে।

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলছেন, এ মুহূর্তে বেগম জিয়ার চিকিৎসার চেয়ে সরকার পতনের আন্দোলনই মুখ্য হওয়া উচিত।

চিকিৎসাধীন বেগম জিয়ার কিছু হলে তার দায় সরকারকে নিতে হবে বলে মন্তব্য করেন দলের নেতারা। বেগম জিয়ার মুক্তির আন্দোলন যেন সরকার পতনের আন্দোলনে রূপ নেয় সেজন্য নেতাকর্মীকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান তারা।

শার্শায় সংবাদ সম্মেলনে উলাশী ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী আইনাল নৌকায় উঠলেন

মোঃ আইয়ুব হোসেন পক্ষী, বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের শার্শায় সংবাদ সম্মেলন করে সতন্ত্র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার করলেন ৯ নং উলাশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আয়নাল হক। দলের প্রতি অনুগত্য ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে শেখ আফিল উদ্দিন এমপির পরামর্শে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে সতন্ত্র প্রার্থীর পদ প্রত্যাহার করেন তিনি।

শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) সকালে শার্শা উপজেলা প্রশাসনিক কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, জেলা পরিষদ সদস্য ও নাভারণ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ইব্রাহীম খলিলসহ বিভিন্ন পর্যায়ের দলীয় নেতাকর্মী ও প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

আয়নাল বলেন, ইউনিয়নবাসীর ভালবাসায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলাম। কিন্তু দলের প্রতি আনুগত্য ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে যশোর-১ শার্শা আসনের বারবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিনের পরামর্শে আমি নৌকার মাঝিকে সমর্থন করে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।

জাতীয় সম্পর্কে সাম্প্রতিক সংবাদ | আন্তর্জাতিক | সরকার | প্রযুক্তি | রাজনীতি | খেলাধুলা | শিক্ষা …

Exit mobile version